Category: প্রশ্নোত্তর

রুকইয়াহ শারইয়াহঃ পরিচিতি

সবচেয়ে বড় এবং প্রথম প্রশ্ন হচ্ছে, রুকইয়াহ কি?  ১)  শাব্দিক অর্থে রুকইয়াহ মানে হল, ঝাড়ফুঁক, মন্ত্র, তাবিজ কবচ ইত্যাদি।  ২) তবে ব্যবহারিক অর্থে রুকইয়াহ বলতে সাধারণত ঝাড়ফুঁকই বুঝায়। ৩ ) রুকইয়ার পারিভাষিক অর্থ হচ্ছে, কোরআনের আয়াত, আল্লাহর নামের যিকর, হাদিসে রাসূল ﷺ অথবা সালাফে সালেহীন থেকে বর্ণিত দোয়া পাঠ করার মাধ্যমে আল্লাহর কাছে কোন বিপদ […]

শিরকি ঝাড়ফুঁক কাজ করে কেন? খ্রিষ্টান যাজকরা কিভাবে ঝাড়ফুঁক করে?

আসসালামু আলাইকুম। মুসলিমরা কুর’আনের সাহায্যে জ্বীন, ভূত ছাড়ায় যেটা আল্লাহর কালাম। তাই জ্বীন ভূত ভিক্টিমকে ছেড়ে চলে যায়। কিন্তু অন্যান্যধর্মের ধর্মগুরুরা কিভাবে বাইবেল, গীতা পড়ে ভূত ছাড়াতে পারে? যেখানে এই বইগুলো নিজেই গভীর শির্কে পরিপূর্ণ সেগুলো কিভাবে শয়তানের বিরুদ্ধে অস্ত্র হতে পারে? উত্তর: ওয়ালাইকুমুসসালাম “…আওফ ইবনু মালিক আশজাঈ রা. থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমরা জাহেলী […]

পিরিয়ড চলাকালীন অবস্থায় রুকইয়া করা যাবে কি?

এই বিষয়ে আমি বড়দের সাথে আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ। তারপরে নিশ্চিত বলতে পারবো। তবে আমার ছোট্ট জ্ঞানে প্রথম এবং শেষ সিদ্ধান্ত নিম্নরূপ – প্রশ্নঃ রুকইয়া শোনা যাবে কি না।  . উত্তরঃ হ্যাঁ যাবে। কোরআন শোনার জন্য পবিত্রতা শর্ত করেনি কেউ, তবে যত বেশি পবিত্র থাকবেন, রুকইয়ার তত বেশি ইফেক্ট হবে। প্রশ্নঃ পিরিয়ডের সময় রুকইয়া গোসলের জন্য […]

বুর্জগ ব্যক্তি ছাড়া রুকইয়াহ করা যাবে না?

রুকইয়া করতে অনেক বুজুর্গ টাইপের কেউ হওয়া লাগেনা। আল্লাহ তা’আলা বলেছেন- “কোরআন মুমিনদের জন্য রহমত এবং শিফা” [সুরা বনি ইসরাইল, ৮২] “বিশ্বাসীদের জন্য হিদায়াত এবং শিফা” [সুরা হামিম সাজদা, ৪৪] অতএব মুমিন বা বিশ্বাসী হওয়াই যথেষ্ট। এমনকি আপনি হয়তো দেখেছেন, অনেক হিন্দু বিশ্বাস করে কোরআনের আয়াত পড়ে ফু দিয়ে দিলে উপকার হয়, তারা হুজুরদের থেকে […]

রুকইয়াহ শুনলেই ঘুম আসে বা সমস্যা হয়?

“আমি রুকইয়া শুনতে পারিনা, রুকইয়া শুনতে লাগলেই ঘুমিয়ে পড়ি” অনেকেই এই কথা বলেন, কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে- . ১. ঘুমিয়ে পড়াটা রুকইয়া আসলেই কাজ করছে এর ইংগিত। ২. বদনজরের সমস্যা থাকলে সাধারণত রুকইয়ার সময় ঘুম আসে। ৩. শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে গেলেও উপকার হয়। তবে জেগে থেকে শুনলে যে পরিমাণ হয়, ততটা না। এজন্য জেগে থাকতে বলা […]

মেয়েরা কি রুকইয়া করতে পারেনা?

অবশ্যই পারে, রাকি হওয়ার জন্য ছেলে হওয়ার বাধ্যবাধকতা নেই। আর স্পষ্ট হাদিস আছে এব্যাপারে। সহিহ ইবনে হিব্বানের ৬২৩২নং হাদিস – আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার ঘরে প্রবেশ করলে, তখন একটা মেয়ের চিকিৎসা করা হচ্ছিল অথবা রুকইয়া করা হচ্ছিল। রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন – কোরআন দ্বারা তার চিকিৎসা করো। রাসুল সল্লাল্লহু […]

অমুসলিমদের ওপর কি রুকইয়া করা যায় না?

সুরা বানি ইসরাইলের এক আয়াতে বলা আছে- “আমি কোরআনে এমন কিছু নাযিল করি যা শিফা এবং মুমিনদের জন্য রহমত” এটা দেখে অনেকে ভাবেন যে রুকইয়া বোধহয় শুধু মুমিনদের জন্যই। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, কোরআন মুমিনদের জন্য আল্লাহর অনুগ্রহ তো এটা যেমন সত্য, আর বিশ্ববাসীর জন্যও আল্লাহর রহমত এটাও ঠিক তেমনই সত্য। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, সাহাবায়ে কিরাম […]

কুফরি কাটাতে কুফরি করা লাগবে?

বহুল প্রচলিত জঘন্য আকিদাগুলোর মাঝে এটা একটা। নিঃসন্দেহে এটা কোরআন বিরোধী আকিদা, বাস্তবতা পরিপন্থী আকিদা, মুর্খতাসুলভ কুফরি আকিদা। আমি কাউকে তাকফির করছি না, কিন্তু বাস্তবেই এটা ইসলাম বিরোধী বাতিল আকিদা। কোরআন এর কথা হচ্ছে – “মন্দ প্রতিরোধ সেটা দিয়েই করুন, যা উত্তম। তারা যা বলে, আমি সে বিষয়ে সবিশেষ অবগত। আর বলুনঃ হে আমার পালনকর্তা! আমি […]

যাদুর জিনিশ ধ্বংস না করলে কি যাদু থেকে মুক্ত হওয়া যায় না?

সমাজে প্রচলিত ভুল ধারনাগুলোর মাঝে এটাও একটা। যা স্পষ্ট হাদিসের বিরোধী, ইসলামি আক্বিদার বিরোধী। রুকইয়া বিষয়ে যেকোন কিছু শিখার আগে এই ঈমান ঠিক করে নেয়া আবশ্যক “আল্লাহ তা’আলা সকল সীমাবদ্ধতার উর্দ্ধে, তিনি চাইলে সবকিছু সম্ভব।” আপনার মনে হতে পারে “আল্লাহ চাইলেই সব হয়” এটাতো সবাই বিশ্বাস করে। আমি বলব না! অধিকাংশ মানুষ এটা মুখে বলে, […]

ঝাড়ফুঁক জায়েজ তাই তাবিজও জায়েজ?

কুফরি তাবিজের ব্যাপারে বলতে লাগলেই আমাদের যেসব ভাইয়েরা ঝাড়ফুঁকের কথা টেনে ওটাকে জায়েজ করার চেষ্টা করেন। তাদেরকে আমি সচরাচর কিছু প্রশ্ন করে থাকি- ঝাড়ফুঁকের ব্যাপারে মুসলিম শরিফে যাবের ইবনে আব্দুল্লাহ রা. এর সাফ হাদিস আছে, রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রথমে ঝাড়ফুঁক নিষিদ্ধ করে দিয়েছিলেন। এরপর যাচাই করার পর শর্তসাপেক্ষে অনুমতি দিয়েছেন। আমার প্রশ্ন হচ্ছে, ১. […]