জ্বিন আসরের চিকিৎসা

অবধারিতভাবে আজ যে বিষয়টা আলোচনায় করতে হবে, তা হচ্ছে “জ্বিন আক্রান্ত মানুষের শরীর থেকে জ্বিন তাড়ানোর ইসলাম সমর্থিত সিস্টেম”

আমরা ৩টি ধাপে বিষয়গুলো আলোচনা করবো, আশা করছি ধৈর্য ধরে সাথেই থাকবেন।

[প্রথম স্টেপ- চিকিৎসার প্রস্তুতি]

চিকিৎসক এর গুণাবলী যা গত পর্বে আলোচনা হয়েছে সেসব তো খেয়াল রাখবেন, এরপর যে ঘরে চিকিৎসা করা হবে, তাঁর পরিবেশ মানানসই হওয়াটাও গুরুত্বপূর্ণ।

১. ঘর টাঙানো বা সাজিয়ে রাখা কোন জীবের ছবি এবং ভাস্কর্য থাকলে সরিয়ে ফেলতে হবে। যেন রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করে।

২. কোনও মিউজিক্যাল ইন্সট্রুমেন্ট থাকলে সরিয়ে ফেলতে হবে।

৩. রুগীর সাথে কোনও তাবিজ থাকলে খুলে ফেলতে হবে। তাবিজ আল্লাহর ওপর তাওয়াককুলের প্রতিবন্ধক।

৪. সেখানে উপস্থিত কেউ যেন অনৈসলামিক অবস্থায় না থাকে, সেটা খেয়াল রাখতে হবে। যেমন: কোনও পুরুষ স্বর্ণ পরে আছে, অথবা কোনও মহিলা বেপর্দা হয়ে আছে।

৫. রুগী এবং তার পরিবারকে এবিষয়ে ইসলামি দর্শন সংক্ষেপে বলবেন, যেমন: এই চিকিৎসায় আমার কোনও ক্ষমতা নাই, সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা একমাত্র আল্লাহ তা’আলার। আল্লাহ তা’আলা কোরআন এর মাঝে শিফা (আরোগ্য) রেখেছেন, আর রাসূল সা. কোরআন দ্বারা চিকিৎসার নির্দেশ দিয়েছেন এজন্য আমরা রুকইয়াহ শারিয়্যাহ পারফর্ম (এর বাংলা কি?) করবো। আর শিরকি ঝাড়ফুঁক বিষয়েও সতর্ক করবেন।

৬. রুগী যদি শরীরের একাংশে আক্রান্ত হয় তাহলে নিশ্চিত হওয়ার জন্য প্রশ্ন করুন। সে স্বপ্নে কোনও প্রাণী দেখে কি না, দেখলে কয়টা প্রাণী দেখে, একই প্রাণী বারবার দেখে কি না। স্বপ্নে কোনও প্রাণী ধাওয়া করে কি না। বোবায় ধরে কি না। মোটকথা, ৪র্থ পর্বে যে ১০-১২টা লক্ষণ বর্ণনা করা হয়েছে সেসবগুলোর ব্যাপারে প্রশ্ন করুন। যাতে ব্যাপারটা নিশ্চিত হওয়া যায়।

আর হ্যাঁ! যদি স্বপ্নে সে সবসময় দুইটা প্রাণীকে.. যেমন: দুইটা সাপকে ধাওয়া করতে দেখে, তাহলে বুঝতে হবে দুইটা জ্বিন আছে। যদি কোনও বিশেষ আকৃতির কোনও মানুষকে ক্রুশ পরিহিত অবস্থায় দেখে, তাহলে বুঝতে হবে খ্রিষ্টান জ্বিন। যাহোক, এসব প্রশ্ন করে অবস্থা সম্পর্কে মোটামুটি একটা ধারণা নিয়ে শুরু করবেন।

৭. রুগী মহিলা হলে… রুগীকে সম্পূর্ণ পর্দাবৃত অবস্থায় থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হয় “যদি কোনও মাহরাম পুরুষ রুকইয়াহ করে, তাহলে অতিরিক্ত ঝামেলা হবেনা।”

৮. সেখানে রুগীর কোন মাহরাম যেন অবশ্যই উপস্থিত থাকে, যেমন: বাবা, ভাই অথবা স্বামী থাকতে পারে। এছাড়া সেখানে অন্য গাইরে মাহরাম কেউ যেন না থাকে। পর্দার বিধান যেন লঙ্ঘন না হয়, এব্যাপারে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।

৯. চিকিৎসা করার পূর্বে ওযু করে নেয়া উচিত। সম্ভব হলে দু’রাকাত সালাতুল হাজত পড়ে নিন। নইলে অন্তত: ইস্তিগফার -দরুদ পড়ে আল্লাহর কাছে সাহায্য চেয়ে চিকিৎসা শুরু করুন।

[দ্বিতীয় স্টেপ: চিকিৎসা]

রুগীর মাথায় হাত রেখে, উচ্চ আওয়াজে রুকইয়ার আয়াতগুলো তিলাওয়াত করুন। তবে যেহেতু সেখানে সিহর/যাদু বিষয়ক আয়াতও আছে তাই জ্বিনের ক্ষেত্রে সবগুলো আয়াত তিলাওয়াতের দরকার নেই। জ্বিনের চিকিৎসার জন্য শুধু নিচের আয়াতগুলো পড়ুন।

১। সুরা ফাতিহা
২। বাকারা ১-৫
৩। বাকারা ১৬৩-১৬৪
৪। বাকারা ২৫৫-২৫৭
৫। বাকারা ২৮৫-২৮৬
৬।আলে-ইমরান ১৮-১৯
৭। আ’রাফ ৫৪-৫৬
৮। মুমিনুন ১১৫-১১৮
৯। সফফাত ১-১০
১০।আহকাফ ২৯-৩২
১১। আর-রহমান ৩৩-৩৬
১২। হাশর ২১-২৪
১৩। সুরা জ্বিন ১-৯
১৪। সুরা ইখলাস
১৫। সুরা ফালাক
১৬। সুরা নাস

আয়াতগুলো একসাথে পিডিএফ করে আমি আপলোড করে দিচ্ছি। ই-বুকের শেষে গত পর্বের দু’আগুলোও রয়েছে –
লিংকঃ http://bit.ly/2pV45ad
বিকল্প লিংক: https://goo.gl/ybMrVU

পুরুষ হলে মাথায় হাত রেখে পড়বেন, গাইরে মাহরাম মহিলা হলে এমনিই জোর আওয়াজে পড়বেন। গাইরে মাহরামকে স্পর্শ করা হারাম। সম্পূর্ণ জিনে ধরা রুগীর ক্ষেত্রে সাধারণত শুয়ে থাকে, তখন রুগীর দুই হাত বুকের ওপর চেপে ধরে, অথবা মাথা চেপে ধরে কোরআন পড়তে পারেন। আর বেশ ছটফট করলে অন্য কাউকে ধরতে বলুন, আর একপার্শে বসে তিলাওয়াত করুন।

মোটকথা, রুগীকে ধরে রেখে আয়াতগুলো তিলাওয়াত করবেন, তাহলে ইফেক্ট বেশি হবে। নাহলে অন্তত রুগীর কাছে বসে জোর আওয়াজে পড়বেন।

এই রুকইয়ার প্রভাবে হয়তো শরীর থেকে জ্বিন চলে যাবে, অথবা শরীরে লুকিয়ে থাকলে কথা বলে উঠবে। যদি কোনও অঙ্গে লুকিয়ে থাকে, তখনও এটা সহ্য করতে পারবে না, জেগে উঠবে। তবে তিলাওয়াত করার সময় আপনি নিয়াত করবেন “যেন শরীর থেকে জ্বিন চলে যায়”। কেননা, রাসূল সা. বলেছেন- শত্রুর সাথে সাক্ষাতের আশা করো না। (বুখারী) এজন্য জ্বিন বিদায় হওয়ার নিয়াত রাখবেন।

যাহোক, এগুলো পড়ার পর রুগীর মাঝে কিছু লক্ষণ খেয়াল করুনঃ

১. হাত দিয়ে চোখ মুখ ঢাকতে চেষ্টা করছে কিনা। ২. অথবা যদি খুব জোরে কেঁপে ওঠে। ৩. অথবা যদি চিৎকার দিয়ে ওঠে। ৪. কিংবা যদি ওর নাম ঠিকানা বলতে শুরু করে !!

এসব দেখলে বুঝবেন, জ্বিন আছে ভেতরে। কথা বলবে কিছুক্ষণের ভেতরেই। আপনি ভীত হবেন না, মনে মনে আল্লাহর কাছে দু’আ করুন।

এরপর জ্বিনকে বেসিক কিছু প্রশ্ন করুন-

১. নাম কি? ধর্ম কি?
২. কেন এর ওপর আসর করেছ?
৩. তোমার সাথে এখানে কি আর কেউ আছে?
৪. কোনও যাদুকরের জন্য কাজ করো নাকি?
৫. শরীরের কোন অঙ্গে ঢুঁকে ছিলে?

এসব কথা শুনে মোটামুটি বুঝতে পারবেন অবস্থা, এরপর আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো হবে বুঝিয়ে সমঝিয়ে শরীর থেকে বিদায় করা।

জ্বিন যদি মুসলমান হয়ঃ

তাহলে তাকে তারগিব-তারহিব এর মাধ্যমে বুঝাতে চেষ্টা করুন। মানে আখিরাতের আযাবের কথা বলে সতর্ক করুন, জান্নাতের পুরষ্কার মনে করিয়ে দিন। যে কোনও মুসলমানকে কষ্ট দিতে আল্লাহ নিষেধ করেছেন। (সুরা আহযাব ৫৮) কাউকে অহেতুক কষ্ট দেয়া উচিত না। চলে গেলে আল্লাহ প্রতিদান দিবেন।

আচ্ছা আসর করার কারণ বুঝে উপদেশ দিতে পারেন। যেমন, যদি বিশেষ কোনও উদ্দেশ্যে আসর করে। (যেমন: পরি আসর করেছে পছন্দ করে তাই) এরকম ক্ষেত্রে বুঝাতে চেষ্টা করুন যে, এটা জায়েজ হচ্ছে না। ইসলাম এটার অনুমতি দেয় না।

যদি কোনও কারণ ছাড়া হুদাই আসর করে, তাহলে বুঝান যে এটা উচিত হচ্ছেনা। এতো তোমাকে কক্ষনো কষ্ট দেয়নি, তোমার কোনও ক্ষতি করেনি, তুমি কেন একে কষ্ট দিবে। হ্যানত্যান বুঝাইয়া যাওয়ার জন্য রাজি করান।
যদি ভুলে কিছু করার জন্য (যেমন, জ্বিনের গায়ে গরম পানি ফেলেছে, প্রসাব করেছে) এরকম কিছু হলে বুঝান। সে তোমাকে দেখতে পায়নি, অনিচ্ছাকৃত ভাবে করেছে এটা। দেখতে পেলে কখনই এমন করতো না। তোমার উচিত হবে একে ছেড়ে দেয়া।

যাহোক, চলে যাওয়ার ব্যাপারে রাজি হলে, নিচের কথাগুলো ওয়াদা করান-
“আমি আল্লাহর নাম শপথ করছি, এখন এই শরীর থেকে চলে যাবো। আর কখনো আসবো না। পরবর্তীতে আর কোনও মুসলমানের ওপর আসর করবো না। এই ওয়াদা ভঙ্গ করলে আমার ওপর আল্লাহর লানত। আমি যা বললাম এব্যাপারে আল্লাহ সাক্ষী।”

এরপর জিজ্ঞেস করুন কোন দিক দিয়ে বের হবে, সে বলতে পারে চোখ, পেট, বুক অথবা মাথার দিক দিয়ে বের হবে, কিন্তু আপনি তাঁকে মুখ, নাক, কান, হাত অথবা পা দিয়ে বের হতে বলুন।

জ্বিন চলে যাওয়ার পর, আবার রুগীর ওপর রুকইয়ার আয়াতগুলো পড়ে যাচাই করুন, আসলেই গেছে কি না। কারণ, জ্বিনেরা খুব বেশি মিথ্যা বলে।

জ্বিন যদি অমুসলিম হয়

জ্বিন অমুসলিম হলে, প্রথমে তাকে ইসলামের সৌন্দর্য বর্ণনা করুন, ইসলাম গ্রহণ করার প্রস্তাব রাখুন।জেনে রাখা ভালো, অধিকাংশ ক্ষেত্রে জ্বিনেরা সহজেই ইসলাম গ্রহণ করে নেয়। যদি কোনোভাবে ইসলাম কবুল করাতে পারেন, তাহলে আল্লাহ আপনাকেনাকে অনেক প্রতিদান দিবে।
যদি ইসলাম কবুল করে, তাহলে আলহামদুলিল্লাহ! এরপর ভালোভাবে বুঝান যে, রুগীর কষ্ট হচ্ছে, কোনও ব্যক্তিকে অন্যায়ভাবে কষ্ট দেয়া উচিত না। উপরের পয়েন্টটাই ফলো করুন।
আর আল্লাহ না করুক, ইসলাম গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালে বাধ্য করা যাবে না। তাঁকে ভবিষ্যতে এব্যাপারে আরো ভেবে দেখতে পরামর্শ দিবেন। এরপর শরীর থেকে চলে যেতে আদেশ করুন, বলুন রুগীর কষ্ট হচ্ছে। এটা ঠিক না। চলে গেলে তো আলহামদুলিল্লাহ্‌! ওয়াদা নিয়ে ছেড়ে দিন।

আপোষে না যেতে চাইলে

কবি বলেন “..আপোষে না গেলে জোর করিয়া!!!” অতএব, ভালোয় ভালো কথা না শুনলে জোর করে তাড়াতে হবে। তবে এখানে লক্ষণীয় হচ্ছে, এব্যাপারে পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলে মারতে যাবেন না। বিশেষতঃ রুগী বাচ্চা হলে চেষ্টা করবেন যেন ভালোয় ভালো বিদায় ক্রয়তে। অনেক জ্বিন আছে, মারার আগেই বের হয়ে যায়, মারা শেষে আবার আসে! অর্থাৎ মাইর পুরোটা রুগীর গায়ে লাগে। এজন্য এব্যাপারে সাবধান!

তো আপনি প্রথমে তাঁকে সতর্ক করুন, যে চলে যাও নয়তো তোমাকে কোরআন আয়াত দিয়ে শাস্তি দেয়া হবে, আর আখিরাতেও তুমি জাহান্নামে যাবে।

যদি না শোনে এবার থার্ড ডিগ্রীতে চলুনঃ

আয়াতুল কুরসি, সুরা ইয়াসিন, সফফাত, দুখান, সুরা জ্বিন, হাশরের শেষ ৩ আয়াত, সুরা হুমাযাহ, সুরা আ’লা এসব এবং এরকম আরো যেসব আয়াতে জাহান্নাম, শয়তান অথবা অন্যান্য আযাবের কথা আছে এসব পড়ুন, আর ফু দিন। পড়ার সময় মাথায় হাত রেখে পড়লে বেশি ভালো। এসব আয়াতের কারণে জ্বিন কষ্ট পাবে, এবং চলে যাবে। ইনশাআল্লাহ!
বিরল কিছু ক্ষেত্রে জ্বিন জেতে চায়না, সেক্ষেত্রে উপরের আয়াতগুলো পড়ে আঘাত করা যেতে পারে, তবে পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলে এদিকে যাওয়া ঠিক হবে না।
খেয়াল রাখবেন, মানুষকে অন্যায়ভাবে কষ্ট দেয়া যেমন হারাম, জ্বিনকে অহেতুক কষ্ট দেয়া হত্যা করাও সমান পাপ। অতএব, কোন প্রকার জুলুম যেন না হয় সতর্ক থাকবেন। নয়তো পরে আপনি বিপদে পড়লে কিছু করার থাকবে না।

যাহোক, সংক্ষেপে এই হচ্ছে জ্বিন তাড়ানোর পদ্ধতি। মূল কথা হচ্ছে, আপনি উত্তেজিত না হয়ে, যদি ভালোয় ভালো রাজি করতে পারেন, ইসলাহি কথা বলে, সতর্ক করে, কিংবা পাম-পট্টি দিয়ে.. তাহলে আশা করা যায় ব্যাপারটা খুব সহজেই সমাধা করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আরো কিছু সিচুয়েশন ক্রিয়েট হতে পারে। সামনের পর্বে এবিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনেকগুলো পয়েন্ট বলা হবে, সাথে কিছু এক্সাম্পল দেয়া হবে। ইনশাআল্লাহ!
সেগুলো অবশ্যই খেয়াল রাখবেন।

[তৃতীয় ধাপ: চিকিৎসা পরবর্তী পরামর্শ]

চিকিৎসা শেষে আক্রান্ত ব্যক্তিকে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে বলবেন-
১. সবসময় জামাতে নামাজ পড়া
২. গানবাজনা, মুভি ইত্যাদি থেকে বেচে থাকা
৩. ওযু করে এবং আয়াতুল কুরসি পড়ে ঘুমাতে যাওয়া,
৪. কদিন পরপর বাসায় সুরা বাকারা তিলাওয়াত করা, বা অন্য কাউকে দিয়ে করানো। সম্ভব হলে সপ্তাহে একবার।
৫. সকালে সুরা ইয়াসিন, এবং রাতে সুরা মুলক পড়া।
৬. “লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহ্দাহু লা-শারীকালাহ, লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হ্‌ামদ, ওয়াহুওয়া ‘আলা কুল্লি শাইয়িন ক্বদীর” ফজরের পর ১০০বার পড়া। (আরবি কমেন্টে)
৭. রাতে একা একা না ঘুমানো।
৮. এছাড়াও চতুর্থ পর্বে জ্বিনের ক্ষতি থেকে বাচতে যেসব কথা বলা হয়েছে সেগুলো শিখিয়ে দিন।

বিশেষ দ্রষ্টব্য: জ্বিনের সমস্যাগুলোর ক্ষেত্রে জ্বিন না তাড়িয়ে শুধু রুকইয়া শুনলে, হয়তো প্রথমে সমস্যা কিছু কমবে। কিন্তু সাধারণত পুরোপুরি ভালো হয় না। অনেকের ক্ষেত্রে সমস্যা আরও বাড়ে। এজন্য জ্বিনের রুকইয়ায় সেলফ রুকইয়া করতে নিরুৎসাহিত করা হয়। তাই জ্বিনের সমস্যার ক্ষেত্রে প্রথমে সরাসরি রুকইয়াহ করা উচিত, পরে অবস্থা বিবেচনা করে রুকইয়াহ শোনা যেতে পারে।

Leave a Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

17 − = nine