কোরবানির গরু এবং বদনজর

কিছুদিন  আগে কিছু ভাই-ব্রাদার গল্প করছিল- গত বছর এক লোক নাকি অনেক বড় একটা গরু বাজারে বিক্রি করতে এনেছিল, নিজেরা এলাকাতেই কয়েক লাখ টাকা দাম হয়েছিল, পরে আরও অধিক মূল্য পাওয়ার আশায় সে ঢাকায় আসছিল। কিন্তু রাস্তার মধ্যে হটাতই তার গরু মারা যায়, শোক সইতে না পেরে বেচারার নিজেও হার্ট অ্যাটাক করেছিল। (সম্ভবত ঘটনাটা এরকমই)

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ঘটনার পেছনে কারণ কি ছিল বলে আপনার মনে হয়?

আমার মনে হয়েছে এটা বদনজরের জন্য হয়েছে। গরুটা অনেক বড়, অনেক স্বাস্থ্যবান অথবা এত দামি গরু!! ইত্যাদি নিয়ে মানুষ যখন অনেক বেশী কথা বলেছে, অনেকে বড় বড় দৃষ্টিতে তাকিয়েছে, রাস্তা দিয়ে আনতে আনতে আরও বহু লোকের সাথে গল্প করেছে। ফলে সে এবং তার গরু খুব সহজেই বদনজর আক্রান্ত হয়েছে।

জাবের রাদিয়াল্লাহু আনহু এবং আবু যর গিফারী রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: “বদনজর মানুষকে কবর পর্যন্ত আর উটকে রান্নার পাতিল পর্যন্ত পৌঁছে দেয়!” (মুসনাদে শিহাব যুহরি, হাদিস ৯৯০, সনদ হাসান)

আচ্ছা! এরকম পরিস্থিতিতে আমাদের কি করা উচিত?

– প্রতিদিনের মাসনুন আমল ঠিকভাবে আদায় করা। নামাজ-কালাম ঠিকমত পড়া, দোয়া করা ইত্যাদি। আর এরকম মৌসুমে গবাদি পশুরও নজর লাগার আশংকা থাকে, তাই প্রতিদিন তাদেরও দোয়া অথবা সুরা ইখলাস, ফালাক, নাস পড়ে ফুঁ দিয়ে দেয়া অথবা মাথায় হাত বুলাতে বুলাতে পড়া।

বদনজর থেকে বাচার উপায় নিয়ে বিস্তারিত এখানে পাবেন

যদি গৃহপালিত পশুর নজর লেগেই যায়, তাহলে কি করবেন?
– তখন রুকইয়াহ করতে পারেন। এবিষয়ে পূর্বেই আলোচনা হয়েছে। এখানে পাবেন

 

Leave a Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।