মুত্তাকী / আলেম ব্যক্তি যারা কবিরাজি করেন, তাদের ব্যাপারে কি বলব?

যাদুটোনা ব্যবহার করা কবিরাজ চেনার কিছু পদ্ধতি বলা হয়েছিল –

১. আপনার কাপড় চাইবে, 
২. আপনার কোন অংশ (যেমন চুল চাইবে)
৩.আপনার নাম এবং মায়ের নাম জিজ্ঞেস করবে।

এটা দেখার পর অনেকে প্রশ্ন করছেন, অনেক আলেম মানুষও তো এরকম করেন। তাদের ব্যাপারে কি বলব?
কেউ বলছেন – অমুক বড় মাদরাসা থেকে ইফতা পড়া মুফতি সাহেব এভাবে এভাবে করেন, তার ব্যাপারে কি বলব?

তাবিজ নিয়ে কথা বলতে গেলেও এরকম মন্তব্য শোনা যায়, খুব পরিচিত একজন মুত্তাকী আলেম আছেন, যিনি সংখ্যা দিয়ে তাবিজ লেখেন, এবং টাকাও নেন না। তাকে আমি কিভাবে ভুল বলব?

প্রিয় ভাই! এখানে কয়েকটা পয়েন্ট মাথায় ঢুকিয়ে নিলে আশা করি ব্যাপারটা সহজ হয়ে যাবে-

১. ‘রুকইয়া শারইয়্যাহ এবং শিরকিয়্যাহ’ একটা স্বতন্ত্র বিষয়। এই বিষয়ে ক্লাস নিতে চাইলে, ৪ মাসের এক সেমিস্টার পুরোটা ক্লাস নিয়েও আলোচনা শেষ করা মুশকিল।

২. একজন ব্যক্তি মুহাদ্দিস সাহেব অথবা মুফতি সাহেব হতে পারেন, কিন্তু তার মানেই উনি তাবিজ-কবচ বিষয়ে খুব গভীর ধারণা রাখবেন এমন তো না। উনি মাদরাসায় পড়েছেন ফিকহে ইসলামি অথবা উলুমে হাদিস বিষয়ে, বদনা চালান দেয়া তো দারুল ইফতায় শিখেননি।

৩. “উনি কাওমি মাদরাসায় পড়েছেন, উনি যে তাবিজ লেখেন!” – এর উত্তরে আমি বলি “দুঃখিত ভাই! কাওমি মাদরাসায় তাবিজ লেখা শিখানো হয় না। এটা উনি অন্য কোথাও শিখেছেন।”

৪. বাস্তবতা হচ্ছে, যারা এসব করেন, তাদের খুবই কম সংখ্যক এসবের গভীর জ্ঞান রাখেন। হয়তো একটা বই পেয়েছে কোন দোকানে বা ফুটপাথে, পড়ার পর আগ্রহ জন্মেছে। ব্যস! শুরু করে দিয়েছেন।

এজন্যই আমরা অহরহ দেখি “বশ করার তাবিজ (পড়ুন যাদু) করতে গিয়ে ভুল করেছিল, এখন পাগল হয়ে গেছে, কিংবা মারাত্মক অসুস্থ হয়ে বিছানায় পড়ে আছে।”

৫. গভীর জ্ঞান না রাখা একটা কারণ, দ্বিতীয় কারণ হচ্ছে- এব্যাপারে বিজ্ঞ আলেমদের মতামত জানতে না চাওয়া, তাদের শরণাপন্ন না হওয়া।

৬. তৃতীয় কারণ হচ্ছে, এব্যাপারে শরিয়ত সমর্থিত পদ্ধতির প্রচলন না থাকা। যার কারণে, লোকেরা ধীরে ধীরে কুফরি যাদুটোনা আর তাবিজের প্রতি ঝুঁকে পড়েছে।

স্মরণ করুন, আলী রা. এর প্রসিদ্ধ উক্তি – “আহলে হক যখন চুপ থাকে, তখন আহলে বাতিল ধারণা করে, তারাই হক!”

  • Categories: ভুল কথাবার্তা