মাস: এপ্রিল 2018

ঔষধ এবং রুকইয়াহ

ইনবক্সে পাওয়া প্রশ্ন- “আসসালামু আলাইকুম। প্রিয় শাইখ আমি আপনাকে আল্লাহ্‌’র জন্যই ভালবাসি। রুকইয়্যাহ আমার কাছে এত ভাল লাগে যে আমার এখন আর কোন ঔষধই খেতে মনে চায় না।মনে চায় রুকইয়্যাহ করতে করতে মরে যাব তবু ঔষধ খাব না।এটা কি কোন সমস্যা করবে?? নাকি এমন মনোভাব রাখা জায়েজ আছে?” উত্তর-  “ওয়ালাইকুমুসসালাম। না, ভাই এমন মনোভাব রাখা […]

কার্স ফর কবিরাজ! যাদুকরদের প্রতি অভিশাপ

[ক] আজ আমরা একটি নতুন রুকইয়াহ নিয়ে আলোচনা করব, সেটার নাম হচ্ছে…..। আচ্ছা নাম না বলি। ঘটনা হচ্ছে, অনেকসময় এমন হয় যে, একবার যাদুর চিকিৎসা করা হয়েছে, আবার জাদু করে। বারবার জাদু করে। এক্ষেত্রে কি করবেন? প্রশ্নটা অল্প কথার হলেও সমস্যাটা বেশ জটিল। [খ] প্রথম কথা হচ্ছে, “রুকইয়াহ বনাম কার্স স্পেল” নামে একটা লেখা অনেকদিন […]

রুকইয়া বিষয়ে সংক্ষেপে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ কথা

দুইটা বিষয়ে এর আগে কয়েকবার সাবধান করেছি, আজ আবার পরিষ্কার ভাষায় বলছি- ১। ইউটিউব থেকে ইচ্ছামত রুকইয়া শুনবেন না, অনেকগুলো খারাপ রিপোর্ট এসেছে। সেজন্য আগেই সাবধান করছি, পরে দুর্ঘটনা হলে কান্নাকাটি করে লাভ নাই। ২। জ্বিনের সমস্যার জন্য যদি আপনি রুকইয়া শুনে থাকেন তবে এই মুহুর্তেই বন্ধ করুন! জ্বিনের সমস্যায় সরাসরি ট্রিটমেন্ট না করে, শুধু […]

রুকইয়া সংক্রান্ত কিছু হাদিস, সংশয় ও পর্যালোচনা

বিসমিল্লাহ। রুকইয়া অর্থাৎ মন্ত্র পড়া, ঝাড়ফুঁক করা, তাবিজ-কবচ মাদুলি এসবও হয়। তবে শাব্দিক অর্থ যাইহোক, আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে পারিভাষিক অর্থ, বা এই শব্দটি আরবরা কোন অর্থে ব্যবহার করে সেটা। রুকইয়া বলতে বুঝায় ঝাড়ফুঁক করা। সেটা যেমন ইসলামি পদ্ধতিতে হতে পারে, আবার শিরকি কুফরি পদ্ধতিতেও হতে পারে। এখন কিছু কিছু হাদিসে রুকইয়ার ব্যাপারে কঠিন শব্দ ব্যবহার […]

বদনজর সম্পর্কে ইসলামী আক্বীদা

আল্লাহর নামে শুরু করছি। মানুষ সামাজিক জীব, এজন্য আমাদের দৈনন্দিনের হাসি-কান্না সুখ-দুঃখ সবার সাথে ভাগাভাগি করে আমরা বেচে থাকি। মানুষ একে অপরের কল্যাণকামী হবে এটাই স্বাভাবিক.. তবে সবসময় তা হয় না!! এই সুস্থ স্বাভাবিক পরিবেশের পেছনে কিছু নিরব ফিৎনা চলে। যেমনঃ হিংসা, নজর, যাদু ইত্যাদি। এসব সর্বকালেই কমবেশি ছিলো, তবে সময়ের এই ক্রান্তিকালে প্রতিটি ফিতনা […]

বদনজরের লক্ষন

গতপর্বে আমরা বদনজরের বাস্তবতার পক্ষে কোরআন এবং হাদিস থেকে আলোচনা করেছি, আজ প্রথমে আমরা বদনজরের কারণ সমূহ এবং সালাফে সালেহিনের দৃষ্টিতে এর মূল্যায়ন জানবো। এরপর নজর লাগার লক্ষণ আলোচনা করবো। ইবনে কাসির রহ. বলেন- বদনজর এর প্রতিক্রিয়া সত্য, যা আল্লাহর নির্দেশেই হয়ে থাকে। (তাফসিরে ইবনে কাসির, ৪/৪১০) হাফেজ ইবনে হাজার রহ. বদনজরের সংজ্ঞা দিতে গিয়ে […]

বদনজর থেকে বাচার উপায়, কিছু ঘটনা

গত পর্বে আমরা বদনজর বিষয়ে সালাফের মতামত এবং বদনজর লাগার কিছু লক্ষণ জেনেছি। আজ বদনজর থেকে বাঁচার উপায় এবং এসম্পর্কিত কিছু সত্য ঘটনা জানবো। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: “নিজের প্রয়োজন পূরণ হওয়া পর্যন্ত সেটা গোপন রাখার মাধ্যমে সাহায্য লাভ করো! কেননা, প্রতিটা নিয়ামত লাভকারীর সাথেই হিংসুক থাকে!” (তাবারানী) এটা নজর এবং হিংসা থেকে […]

রুকইয়ার শরঈ বিধান এবং বদনজরের চিকিৎসা

[ক] গত তিন পর্বে আশা করছি বদনজর বিষয়ে আপনাদের কোনো অস্পষ্টতা নেই। এরপরেও যদি থাকে তাহলে কমেন্টে সুওয়াল করতে পারেন। ইনশাআল্লাহ উত্তর দেয়া হবে। এপর্বের শুরুতে রুকইয়াহ বা ঝাড়ফুঁক বিষয়ে ইসলামের বিধানটা ক্লিয়ার করি, এরপর বদনজর আক্রান্তের চিকিৎসা বলা হবে। তবে অনেকগুলো অপশন দেখে কনফিউশনে ভুগলে বলবো [ঘ:পঞ্চম পদ্ধতি] ফলো করুন। জ্বিন বা যাদুর মত […]

জ্বিনের আসর বিষয়ে ইসলাম আক্বীদা

বিসমিল্লাহ্‌! যাদু, জ্বিন ও বদনজর সিরিজের দ্বিতীয় অধ্যায় আজ শুরু হচ্ছে। সিরিজের নাম শুধু “জ্বিন” দিলাম না এজন্য.. কারণ এটা ব্যাপক অর্থবোধক, জ্বিন সিরিজ বললে এর মাঝে জ্বিন জাতির ইতিহাস, প্রকার, গোত্র, জীবনাচার অনেক কিছু আলোচনা আবশ্যক হয়ে পড়ে, অথচ এতে আমরা শুধু খারাপ জ্বিনদের বিভিন্ন প্রকার ক্ষতি থেকে বাঁচার ইসলাম সম্মত নিয়ে আলোচনা করবো। […]

সালাফে সালেহিনদের থেকে জ্বিনের চিকিৎসা বিষয়ক ঘটনা

সালাফে সালেহিনদের থেকে জ্বিনের চিকিৎসা বিষয়ক অনেক ওয়াকিয়া বর্ণিত আছে। যেমন: একজন মৃগীরুগীকে আক্রান্ত অবস্থায় দেখে ইবনে মাসউদ রা. তার কানের কাছে গিয়ে افحسبتم انماخلقناكم عبسا আয়াতটা থেকে সুরার শেষ পর্যন্ত পড়েন, আর সে সাথে সাথে সুস্থ হয়ে যায়। তখন রাসুল সা. ইবনে মাসউদ রা.কে ডেকে বললেন- তুমি ওর কানের কাছে গিয়ে পড়লে? ইবনে মাসউদ […]