তিন স্তরের রুকইয়াহ

রুকইয়াহ শারইয়ার মাঝে যা কিছু পড়া হয়, সেগুলোকে আমরা তিনস্তরে ভাগ করতে পারি:

১. সর্বোত্তম

২. উত্তম

৩. বৈধ।

আমরা এগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।

তবে এর আগে জেনে রাখা ভালো, আপনাকে প্রতিটি ক্যাটাগরি থেকেই পড়তে হবে, এটা আবশ্যক না। আপনি চাইলে উল্লেখিত সর্ব প্রকারের আয়াত এবং দোয়া থেকে পড়তে পারেন, অথবা চাইলে যেকোন এক প্রকার যেমন, শুধু আফদ্বাল বা খায়ের রুকইয়াহ থেকে পড়তে পারেন। তবে বাস্তব অভিজ্ঞতায় দেখা গিয়েছে, শুধুমাত্র মাসনুন রুকইয়াহগুলো বারবার পড়ে দীর্ঘক্ষণ রুকইয়াহ করলে তুলনামূলক বেশি উপকার হয়।
আরেকটি কথা, “সাধারণ আয়াতে রুকইয়াহ” বলতে যে আয়াতগুলো আমরা বুঝি, সেটা নিচে উল্লেখিত প্রথম দুই স্তরের আয়াত দিয়ে সাজানো হয়েছে।

১. আফদ্বাল ওয়া মাসনুন (সর্বোত্তম এবং সুন্নাত)

ক. রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অথবা সাহাবায়ে কিরাম থেকে যেসব দোয়া এবং আয়াত দ্বারা রুকইয়াহ করার কথা বর্ণিত হয়েছে। যেমন: সুরা ফাতিহা, সুরা ফালাক, সুরা নাস। আযহিবিল বা’স রব্বান নাস….
খ. যেসব আয়াত এবং দুয়া শয়তান থেকে নিরাপদ থাকতে, বিপদ থেকে বাঁচতে, কিংবা সুস্থতার জন্য রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পড়েছেন অথবা পড়তে বলেছেন। যেমন: আয়াতুল কুরসি, সকাল-সন্ধ্যার কোন মাসনুন দোয়া
গ. কোরআনুল কারিম অথবা হাদিসে বর্ণিত অন্যান্য নবীদের দু’আ। যেমন: আইয়্যুব আলাইহিস সালামের দু’আ “আন্নি মাসসানিয়াদ দ্বুররু ওয়া আনতা আরহামুর রহিমীন”।

২. খইর (উত্তম)
প্রাসঙ্গিক আয়াতসমুহ। আক্রান্ত ব্যক্তির সমস্যার বিষয়ে কোরআনুল কারিমের যে আয়াতগুলোতে আলোচনা হয়েছে সেসব আয়াত। মাসনুন রুকইয়ার পর তুলনামুলকভাবে এই আয়াতগুলো অন্যান্য আয়াতের চেয়ে বেশি উপকারী।
যেমন যাদুর আক্রান্তের জন্য: সুরা আ’রাফ ১১৭-১২২, সুরা ইউনুস ৮১-৮২, সুরা ত্বহা ৬৯নং আয়াত।
জিন আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য: সুরা সফফাতের প্রথম ১০ আয়াত, সুরা জিনের প্রথম ৯ আয়াত, সুরা আর-রহমানের ৩৩ থেকে ৩৬ আয়াত।
বদনজর আক্রান্তের জন্য: সুরা কাহাফের ২৯নং আয়াত, সুরা কলামের শেষ ২ আয়াত।

৩. জায়েয (বৈধ)

এছাড়া কোরআনুল কারিমের অন্য যেকোন আয়াত, রাসুল সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত যেকোন দোয়া দিয়ে আপনি রুকইয়াহ করতে পারেন। এরসাথে নিজে থেকে চাইলে কোন দোয়া করতে পারেন। যেমন প্রসিদ্ধ কিছু দোয়া: হে আল্লাহ! সব যাদু ধ্বংস করে দাও (আল্লাহুম্মা ফুক্কা কুল্লা সিহর) সব রোগ থেকে আরোগ্য দাও (আল্লাহুম্মাশফি কুল্লা মারিয) আল্লাহ তোমার শিফা থেকে আমাকে তুমি আরোগ্য দাও। (আল্লাহুম্মাশফিনি বিশিফাক) আপনি এসব দোয়া আরবিতে করতে পারেন অথবা নিজের ভাষা বাংলায় করতে পারেন, কোন সমস্যা নেই!

পুর্বে উল্লেখিত শরঈ বিধানের সীমারেখা লক্ষণ না করলে উপরের সবগুলোই জায়েজ, আর সবগুলো রুকইয়াহ শারইয়ার মধ্যেই গণ্য হবে। আল্লাহ সবচেয়ে ভালো জানেন!

Leave a Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

31 + = thirty four